1. admin@shikkhasamachar.com : admin :
বৃহস্পতিবার, ০৫ অগাস্ট ২০২১, ০৩:১১ পূর্বাহ্ন

অতিরিক্ত ঘুম আসার কারণ – শিক্ষা সমাচার

সমাচার ডেস্কঃ
  • আপডেট সময় : রবিবার, ১৪ ফেব্রুয়ারি, ২০২১
  • ১৬৭ বার পঠিত

মাঝেমধ্যে আমরা লক্ষ্য করে থাকি সবসময় আমাদের ঘুম আসছে। শরীরে ক্লান্তি অনুভব হচ্ছে। যদি তাই হয় তাহলে আগেই সতর্ক হওয়া দরকার। কি কারণে ঘুম আসছে প্রথমে সে উত্তর খুঁজে বের করুন। আমাদের বুঝতে হবে যে আমাদের শরীরের সব কিছু সহ্য করার ক্ষমতা নেই। আপনি যদি এমন কিছু করেন যা প্রয়োজনীয় সীমা ছাড়িয়ে যায় তবে আপনি ক্লান্তিবোধ করবেন এবং সারাদিন আপনার ঘুম আসবে। অনেক গবেষণা পর বিশেষজ্ঞরা সবসময় ঘুম আসার ৮টি কারণ খুঁজে বের করেছেন।

ডায়েট স্বাস্থ্যকর না:
স্বাস্থ্যকর ডায়েট না হওয়ার অর্থ আপনাকে সালাদ এবং সিদ্ধ খাবারের প্রতি জোর না দেওয়া বোঝায়। মানসম্পন্ন ঘুম না হওয়ার পেছনে সবচেয়ে বড় কারণ হ’ল আপনার শরীরে প্রয়োজনীয় পুষ্টি উপাদানের ঘাটতি রয়েছে। যেমন প্রোটিন, স্বাস্থ্যকর কার্বস, ভিটামিন, খনিজ ইত্যাদি।
এছাড়াও, সঠিক সময়ে খাওয়া অত্যন্ত জরুরী। কারণ ভারী রাতের খাওয়ার পরে অস্বস্তি বোধ হয় এবং এতে করে ঘুম আসে না এবং পরেরদিন আপনার ঘুম আসবে।

ওজন বেড়ে যাওয়া:
অতিরিক্ত ওজন হওয়ায় ক্লান্তি ও অবসন্নতা দেখা দেয়, যার কারণে সবসময় আপনার মাথা ঘুরে ওঠে। আপনার ওজন আপনার পেশী এবং জয়েন্টগুলিকেও চাপ দেয় এবং ব্যাথা হয়। স্লিপ হেলথ জার্নালটির গবেষণা অনুসারে ঘুম এবং ওজন সরাসরি একে অপরের সাথে সম্পর্কিত। এজন্য ঘুম জরুরী।

ঘুমের ধরণ:
আপনি ঠিক সময়ের বেশি ঘুমোচ্ছেন, আপনি রুটিন এড়িয়ে যাচ্ছেন, আপনার শরীরের ঘড়িটি সামঞ্জস্য করবে না। আপনি কখনই এভাবে বেশি ঘুমাতে পারবেন না। অতএব আপনি নিজের দিনটি এমনভাবে পরিকল্পনা করুন যাতে আপনার ঘুম পরিপূর্ণ হয়। সর্বোচ্চ আট ঘন্টা আপনি ঘুমান।

আপনার পেশী ক্লান্ত:
যাদের ডেস্ক জব নেই এবং কঠোরভাবে প্রতিটি দিনই ব্যায়াম হয় না, আপনার জন্য সংবাদ আছে। আপনার সক্রিয় জীবনধারা আপনাকে খুব বেশি সহায়তা করবে না, কারণ এটি আপনাকে উত্সাহিত করার পরিবর্তে ক্লান্ত করে তুলছে। অতিরিক্ত ব্যায়াম করা আপনার পেশীগুলিকে অপ্রয়োজনীয় চাপ দেয় যা আপনাকে ক্লান্ত ও দুর্বল করে তোলে। এতে করে ঘুম আসে সবসময়।

খাবার এড়ানো:
যদি আপনি আপনার খাবার এড়িয়ে চলেন এবং অনাহারে থাকেন তবে আপনি সব সময় নিদ্রাহীন বোধ করতে বাধ্য। ক্ষুধা আপনার শরীরকে শিথিল হতে দেয় না এবং হরমোনগুলো প্রকাশ করে যা আপনাকে বিরক্ত করে তোলে, যার কারণে আপনার ঘুম খারাপ হয়।

শরীরকে পর্যাপ্ত পরিমাণে হাইড্রেট করছেন না:
যদি আপনার শরীর হাইড্রেটেড হয় তবে এটি আপনাকে আপনার দেহের শক্তির স্তর বজায় রাখতে সহায়তা করে। ব্রিটিশ জার্নাল অফ নিউট্রিশনে প্রকাশিত একটি সমীক্ষায় পরামর্শ দেওয়া হয়েছে যে সামান্য ডিহাইড্রেশন শক্তির স্তর হ্রাস করতে পারে এবং এতে করে স্বাস্থ্যের উপরও প্রভাব পরে।

অতিরিক্ত রিফাইনড ফুড খাওয়া:
রিফাইনড ফুডে অনেক চিনি থাকে এবং এতে শরীরে শক্তিও যোগায়। তবে এই শক্তি স্থায়ী হয় না বেশি এবং আপনার ক্লান্তিবোধ অনুভব হবে।

মানসিক চাপ:
মানসিক চাপ কেবল মানসিক অবসন্নতায় ডেকে আনে না, তবে শারীরিক ক্লান্তিও বটে। আন্তর্জাতিক গবেষণা জনস্বাস্থ্যের জার্নালে প্রকাশিত একটি সমীক্ষায় পরামর্শ দেওয়া হয়েছে যে স্ট্রেস আপনার ঘুম কমিয়ে দেয়, যা পরের দিন আপনার ঘুম ঘুম লাগে।

নিউজটি শেয়ার করুন।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরও খবর